মানিকগঞ্জে স্কুলশিক্ষক সাময়িক বরখাস্ত

অনলাইন ডেস্ক ০৪:০০, ১২ জুলাই ২০১৯

মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রীর ওপর যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গ্রেপ্তার শিক্ষক শরিফুল ইসলাম সেন্টুকে গতকাল বৃহস্পতিবার সাময়িক বরখাস্ত করেছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। এ ছাড়া ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও)।

এদিকে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে গতকাল স্কুলপ্রাঙ্গণে মানববন্ধন করে শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা।

দৌলতপুর প্রমোদা সুন্দরী মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মিজানুর রহমান জানান, গতকাল দুপুরে স্কুলের পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও দৌলতপুর ইউএনও সাবরিনা শারমিনের সভাপতিত্বে স্কুলে জরুরি সভা হয়। সভায় অভিযুক্ত শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। সেই সঙ্গে ঘটনা তদন্তে পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেন ইউএনও। আগামী রবিবার কমিটি গঠন করা হবে বলে জানান তিনি।

এদিকে যৌন নিপীড়নের প্রতিবাদে এবং অভিযুক্ত শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে গতকাল দুপুরে স্কুলপ্রাঙ্গণে মানববন্ধন করে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, শিক্ষক ও অভিভাবকরা। ইউএনও সাবরিনা শারমিন মানববন্ধনে অংশ নিয়ে তাদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করে বলেন, শিক্ষক দ্বারা ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের মত ন্যক্কারজনক ঘটনা খুবই দুঃখজনক। ছাত্রীদের সঙ্গে এরকম ঘটনা যেন আর না ঘটে, সেজন্য তিনি ছাত্রীদের সোচ্চার হতে বলেন এবং এ ধরনের তথ্য তত্ক্ষণাৎ থানা ও প্রশাসনকে জানানোর পরার্মশ দেন। অভিযুক্ত যে-ই হোক, তাকে ছাড় দেওয়া হবে না বলে তিনি মন্তব্য করেন।

দৌলতপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুনীল কর্মকার জানান, গ্রেপ্তার শিক্ষকের পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠালে বিচারক গতকাল দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। বর্তমানে ওই শিক্ষককে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

স্কুলশিক্ষক সেন্টুর বিরুদ্ধে এক ছাত্রীর ওপর যৌন নিপীড়নের অভিযোগে গত মঙ্গলবার রাতে দৌলতপুর থানায় মামলা হয়। ওই রাতেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরদিন বুধবার পাঁচ দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হলে গতকাল মানিকগঞ্জ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক গোলাম সারোয়ার তার দুদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ