ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদক, অস্ত্রসহ ভণ্ডপীর আটক

অনলাইন ডেস্ক ০৭:০০, ৯ অক্টোবর ২০১৯

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সহযোগীসহ মাদক ও অস্ত্র নিয়ে আটক হয়েছেন মো. মনির খান নামে এক ‘ভণ্ডপীর’। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালত তাদের প্রত্যেককে তিন মাস করে কারাদণ্ড প্রদান করেছেন। মনির খানের সহযোগী হলেন মো. মাসুদ উল্লাহ।

পৌর এলাকার ভাদুঘরের শফিকুল ইসলামের ছেলে মনির খান নিজেকে ওলামা লীগের ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সভাপতি হিসেবেও নিজেকে পরিচয় দিতেন। অন্যদিকে একই এলাকার মো. সানাউল্লাহ’র ছেলে মাসুদ উল্লাহ ‘ভণ্ডপীরের’ সহযোগী ছিলেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মনির খান বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত এমন তথ্যের ভিত্তিতে তার ওপর নজরদারি করে জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থা (এনএসআই) ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর। গতকাল মঙ্গলবার রাতে ভাদুঘরের গ্লোবাল ভিশন ট্রাভেল এজেন্সিতে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ওই অফিস থেকে একটি রাম দা, দুই পিস ইয়াবা ট্যাবলেট, একশ’ গ্রাম গাঁজা, কিছু তাবিজ উদ্ধার ও সহযোগীসহ মনিরকে আটক করা হয়। পরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. জুবায়ের হোসেনের ভ্রাম্যমাণ আদালতর ওই দুইজনকে তিন মাস করে কারাদণ্ড দেন।

মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর ব্রাহ্মণবাড়িয়া সার্কেলের পরিদর্শক (ইন্সপেক্টর) মো. শরীফুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, মূলত মনিরের কাছ থেকে একটি অস্ত্র কেনার ফাঁদ পাতা হয়। অস্ত্রের জন্য তিনি পুরো অগ্রীম হিসেবে চার লাখ টাকা চাচ্ছিলেন। মনির অস্ত্র ব্যবসার পাশাপাশি পীর হিসেবে নিজেকে পরিচয় দিতো।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আল-মামুন সরকার বলেন, ওলামা লীগ নামে কোনো সংগঠনের কমিটি জেলাতে নেই। ধরা পড়া মনির নামে ওই ব্যক্তি আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত নয়। গ্রেপ্তারকৃতদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেন তিনি।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ