তরুণীর আত্মহত্যার নেপথ্যে গণধর্ষণ!

অনলাইন ডেস্ক ০২:০০, ১৪ অক্টোবর ২০১৯

বিশ্বনাথে গলায় ওড়না পেঁচিয়ে পপি বেগম (১৯) নামের এক তরুণীর গণধর্ষণের শিকার হয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। সে উপজেলার অলংকারী ইউনিয়নের লালটেক গ্রামের শুকুর আলীর মেয়ে। দাফনের দুইদিন পর নিহতের ব্যবহৃত ভ্যানেটি ব্যাগ থেকে তার মা জোসনা বেগম একটি চিরকুট (সুইসাইড নোট) পেয়েছেন বলে জানা গেছে।

ওই তরুণী গণধর্ষণের শিকার হয়েই আত্মহত্যা করেছেন বিশ্বস্ত সূত্রে এমন তথ্য পেয়ে রবিবার দুপুরে স্থানীয় সংবাদকর্মীরা নিহতের বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে আলাপ করে বিষয়টি নিশ্চিত হন। এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ বসতঘর থেকে পপি বেগমের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। ওইদিন রাতে ‘‘বিশ্বনাথে তরুণীর আত্মহত্যা’’ শিরোনামে কালের কণ্ঠ অনলাইনে একটি সংবাদ প্রকাশিত হয়েছিল।

নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, পপি বেগম গত রবিবার (৬ অক্টোবর) বেড়াতে যায় বড় বোন হেপি বেগমের স্বামীর বাড়ি দক্ষিণ সুরমা উপজেলার তেতলী ইউনিয়নের চেরাগী গ্রামে। সেখান থেকে গতকাল রবিবার তাকে বাড়িতে নিয়ে আসার কথা থাকলেও গত বৃহস্পতিবার সকালে পপি নিজ বাড়িতে চলে আসতে কান্না কাটি শুরু করে। একপর্যায়ে তাকে ওইদিন দুপুরে নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন ভগ্নিপতি ফয়জুল ইসলাম। 

এরই মধ্যে ফয়জুল ইসলাম বড় ভাই নুরুল ইসলাম তেতলী পয়েন্টে গিয়ে লোকমুখে জানতে পারেন তার ভাইয়ের শালিকা পপিকে সারা রাত বাহিরে পেয়ে স্থানীয় চেরাগী গ্রামের জাহাঙ্গীর আলম (৩৫) নামের এক যুবক বাড়িতে পৌঁছে দেয়। এমন খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক লালটেক গ্রামের পপির বাড়িতে ছুটে আসেন নুরুল ইসলাম এবং তিনি পপির সঙ্গে একান্তে আলাপ করে রাতে কোনো ঘটনা ঘটেছে কি না তা জানতে চান। কিন্তু পপি বেগম তাকে কিছু না বলায় তিনি নিজ বাড়িতে ফিরে গিয়ে শুনতে পান পপি আত্মহত্যা করেছে। খবর পেয়ে গত বৃহস্পপতিবার বিকেলে থানা পুলিশ লাশ উদ্ধার করে মর্গে প্রেরণ করে। এরপর ময়না তদন্ত শেষে পরদিন শুক্রবার নিহতের দাফন সম্পন্ন করা হয়।

নিহতের মা জোসনা বেগম সাংবাদিকদের জানান, গতকাল রবিবার মেয়ে পপি বেগমের ব্যবহৃত ভ্যানেটি ব্যাগ হাতে নিয়ে তিনি মেয়ের রেখে যাওয়া স্মৃতি দেখতে গিয়ে ওই ব্যাগের মধ্যে পপির নিজ হাতে লেখা একটি কাগজ দেখতে পান। এ সময় তিনি প্রতিবেশী লোকজনকে ওই কাগজটি দেখান। তখন কাগজ পড়ে জানতে পারেন গণধর্ষণের শিকার হয়ে লজ্জায় তার মেয়ে আত্মহত্যা করেছে।

জোসনা বেগম আরো জানান, তার মেয়ে পপি বেগমের নিজ হাতে লেখা ওই কাগজ (সুইসাইড নোট) পড়ে তিনি জানতে পারেন গত বুধবার দিবাগত রাতে বোনের বাড়িতে অবস্থানকালে প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিয়ে পপি বেগম ঘরের বাহিরে যায়। তখন পূর্ব থেকে ওঁৎ পেতে থাকা দুই ব্যক্তি তাকে জোরপূর্বক উঠিয়ে নিয়ে যায় এবং তার মুখ, হাত ও পা বেঁধে মারধর করে রাতভর পাশবিক নির্যাতন করে। 

এরপর ভোর রাতে পপিকে বোনের বাড়িতে (যেখান থেকে উঠিয়ে নেওয়া হয়, সেই স্থানে) ফেলে রেখে যায় ওই দুই ব্যক্তি। তবে ওই দুইজনকে পপি চিনতে পেরেছে এবং তাদের নামও সুইসাইড নোটে সে উল্লেখ করেছে বলে সাংবাদিকদের জোসনা বেগম জানান।

এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শামীম মুসা বলেন, নিহতের পরিবারের মৌখিক অভিযোগ আমরা পেয়েছি। তা খতিয়ে দেখে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ