সর্বশেষ :

বশেমুরবিপ্রবির সহকারী প্রক্টরের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ

অনলাইন ডেস্ক ১০:০০, ১৩ নভেম্বর ২০১৯

এবার গোপালগঞ্জের বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বশেমুরবিপ্রবি) সহকারী প্রক্টর ও সমাজবিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবিরের বিরুদ্ধে এক বিদেশি ছাত্রীকে (নেপালি) যৌন নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি বিজ্ঞান অনুষদের ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার বরাবর লিখিত অভিযোগ পেশ করেন।

তার অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, সমাজ বিজ্ঞান অনুষদের প্রভাষক হুমায়ুন কবির তাদের কৃষি বিজ্ঞান অনুষদের ক্লাস নিতেন। ক্লাস শেষে তাকে প্রায়ই ব্যক্তিগতভাবে দেখা করতে বলতেন। তিনিও তার সাথে দেখা করতেন। দেখা করার পরে তিনি তার সাথে ফ্রি ভাবে কথা বলতেন ও বন্ধুত্ব সুলভ আলোচনা করার জন্য অনুরোধ করতেন এবং হুমায়ুন কবির স্যার তাকে ফেসবুকে ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠান ও এক্সেপ্ট করার জন্য অনুরোধ করেন। তিনি তার ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট এক্সেপ্ট করেন। তারপর থেকে তিনি তার সাথে সেক্সুয়ালি ম্যাসেজ করতে থাকেন এবং ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে তাকে বিয়ে করার প্রস্তাব দেন এবং খুব খারাপ ম্যাসেজিং করতে থাকেন। 

তিনি আমার পেটে বাচ্চা দেওয়ার প্রস্তাব দেন। তিনি তাকে ঘুরতে যাওয়ার জন্য প্রস্তাব দিতে থাকেন। তিনি এসব কথা শিক্ষকদের কাছে বলে দেওয়ার কথা বললে তাকে নানা ভাবে হুমকি দেন। তিনি (হুমাযুন কবীর স্যার) আমাকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো প্রকার সার্টিফিকেট নিয়ে বাংলাদেশ থেকে যেতে দেবেননা বলেও  হুমকির দিয়েছেন। এসব কারণে আমি নিরাপত্তাহীনতা ও দুশ্চিন্তায় ভুগছি। এসব কারণে পড়ালেখায় বিঘ্ন ঘটছে। 

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষক তার বিরুদ্ধে করা অভিযোগ ভিত্তিহীন ও বানোয়াট আখ্যায়িত করে বলেন, সম্প্রতি উপাচার্য অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসিরউদ্দিনের পদত্যাগের আন্দোলনে আমি সহকারী প্রক্টর থেকে পদত্যাগ করে শিক্ষার্থীদের পক্ষে অবস্থান নেই। তখন একটি পক্ষ আমার নামে ফেক আইডি খুলে আমার নামে বিভিন্ন মিথ্যা অপপ্রচার চালায়। তখন এ বিষয়ে আমি থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করি। এটাও তার একটি অংশ।

রেজিস্ট্রার প্রফেসর ড. মো. নুরউদ্দিন আহমেদ বলেছেন, মেয়েটি অভিযোগ দিয়েছে। অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত কমিটি গঠন করে দ্রুত পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর (ভারপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ড. মো. শাহজাহান বলেছেন, বিষয়টি সম্পর্কে তিনি অবগত নন। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দোষী ব্যক্তির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, এর আগেও বিভিন্ন সময়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিন, হিসাব বিজ্ঞান অনুষদের শিক্ষক বরিউল ইসলাম ও সিইসি অনুষদের সাবেক চেয়ারম্যান মো. আক্কাস আলীর বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ ওঠে।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ